Hotline : 0601-61555
District Police
Shariatpur
Community Policing

কমিউনিটি পুলিশিং

পুলিশ-ই জনতা, জনতা-ই পুলিশ। এই মূল মন্ত্রকে সামনে রেখেই কমিউনিটি পুলিশিং এর অগ্রযাত্রা। একটি উদার ও গণতান্ত্রিক সমাজে বসবাসরত নানা বৈচিত্রে সমৃদ্ধ জণগোষ্ঠীকে পুলিশিং সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে পুলিশ ব্যবস্থাপকদের সামনে দুটি মাত্র কৌশল উন্মুক্ত রয়েছে। এদের মধ্যে একটি হল কমিউনিটি পুলিশিং, অন্যটি হলো জন-শৃংখলা রক্ষার্থে আইন প্রয়োগ করা। কৌশল দুটি একটি অন্যটির সম্পূর্ন বিপরীত নয় বরং এরা একই কর্মপদ্ধতির ধারাবাহিকতা।

কমিউনিটি পুলিশিং কি ?

কমিউনিটি পুলিশিং হলো একটি দর্শন ও সাংগঠনিক কর্ম কৌশল, যা পুলিশ ও জণগনকে একতাবদ্ধ হয়ে অপরাধ, বিশৃংখলা ও নিরাপত্তা বিষয়ক সমস্যাগুলো সমাধানের জন্য নতুন পথের সন্ধান দেয়। মূলত কমিউনিটি পুলিশিং দুইটি মূল ধারনার উপর প্রতিষ্ঠিত। প্রথমটি হল, ইহা পুলিশ ও পুলিশের কর্মপদ্ধতি ও সেবা প্রদানের প্রক্রিয়ার পরিবর্তন দাবী করে। অন্যটি হল, ইহা পুলিশ ও জণগনের মধ্যে একটি সেতু বন্ধন তৈরীর জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করে। জণগনের সাথে অংশদারিত্বের ভিত্তিতে কাজ করতে পারে এমন একটি পেশাদার প্রতিনিধিত্বশীল সহানুভূতি সম্পন্ন ও জবাবদিহিতামূলক প্রতিষ্ঠান তৈরী করাই কমিউনিটি পুলিশিং এর চুড়ান্ত লক্ষ্য।

এক নজরে শরীয়তপুর জেলার কমিউনিটি পুলিশিংঃ

পৌরসভা সমন্বয় কমিটি       = ৬টি, সদস্য সংখ্যা =১২৪ জন।

থানা সমন্বয় কমিটি = ৭টি,   সদস্য সংখ্যা =১৪৬ জন।

ইউনিয়ন সমন্বয় কমিটি       = ৬৫টি, সদস্য সংখ্যা = ১১৫৪জন।

পৌরওয়ার্ড সমন্বয় কমিটি     = ৫৪টি, সদস্য সংখ্যা=৮৪৩ জন।

ইউনিয়ন সমন্বয় ওয়ার্ড কমিটি = ৫৮৫টি, সদস্য সংখ্যা=৯২৮৭ জন।

 

ওয়ার্ড কমিটির কার্যক্রম ঃ

১) সমাজে শান্তি শৃংখলা বজায় রাখা ও জন নিরাপত্তা উন্নয়ন করা।

২) অপরাধ প্রতিরোধ নিরাপদ সড়ক,আইন শৃংখলা রক্ষায় সহযোগিতা, পরিবেশ ও স্বাস্থ্য উন্নয়ন।

৩)     সাধারন নাগরিকদের শিক্ষা ও কল্যানমূলক কার্যক্রম।

৪)     মামলার বাদী/সাক্ষীদের উৎসাহ প্রদান, দূর্বল ও অপরাধের শিকার ব্যক্তিবর্গদের সহায়তাদান এবং ন্যয় বিচার প্রতিষ্টা করা।

৫)     মাদকের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলা এবং নিরব নারী নির্যাতন ও ইভটিজিং প্রতিরোধ সংক্রান্ত গণ সচেতনতা বৃদ্ধি করা।

৬)     মিথ্যা মামলা এবং নিরীহ লোককে হয়রানি করার ক্ষতিকর দিক সম্বন্ধে জনগণকে সচেতন করা ও তা প্রতিরোধের ব্যবস্থা নেয়া।

৭)     গণমাধ্যমের সাথে পুলিশের সহযোগিতা বৃদ্ধি, পারস্পরিক আস্থা, সমঝোতা ও পারস্পরিক শ্রদ্ধা বৃদ্ধির লক্ষ্যে কর্মসূচি গ্রহন কর।

ইউনিয়ন কমিটির কার্যক্রম ঃ

১)     ওয়ার্ড পর্যায়ের কমিটি সমূহ ও সেবাভোগীদের সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে সমন্বয় সাধন করা।

২)     স্থানীয় সমস্যা নিরুপনে কমিউনিটিতে জরীপ পরিচালনা করা।

৩)     বিশেষ সুবিধা বঞ্চিত ও গোষ্টী, যেমন ঝুকিপূর্ন নারী ও শিশুদের উন্বয়নে কৌশল প্রনয়ন করা।

৪)     অপরাধ প্রতিরোধ ও কমিউনিটি নিরাপত্তা রক্ষার্থে কমিউনিটির সাথে অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠা করা।

 

থানা সমন্বয় কমিটির কার্যক্রম

১)     স্থানীয় কমিউনিটির চাহিদা ও প্রত্যাশা চিহ্নিত করা।

২)     স্থানীয় সমস্যা নিরুপনে কমিউনিটিতে জরীপ পরিচালানা করা।

৩)     অপরাধ প্রতিরোধ ও জননিরাপত্তা উন্নয়নে কমিউনিটির সাথে কার্যক্রম অংশদারিত্ব গড়ে তোলা।

৪)     নারী, অপ্রাপ্ত বয়স্কসহ সমাজের ঝুকি প্রবন অংশের কথা বিবেচনায় রেখে তাদের সুনিদির্ষ্ট সমস্যা সমাধানের জন্য কমিউনিটি কর্ম পরিকল্পনা তৈরী করা।

জেলা সমন্বয় কমিটির কার্যক্রম

১)     বিদ্যমান সামাজিক গোষ্টী বা সংগঠন গুলোকে সামাজিক নিরাপত্তা বিষয়ে চিন্তা ভাবনা করা এবং সামাজিক নিরাপত্তা বিষয়ে ইতিবাচক প্রভাব তৈরীর ফোরাম হিসাবে কাজ করা।

২)     কমিউনিটি নিরাপত্তা বিষয়ে জনগনকে ধারনার বিকাশ ঘটানো।

৩)     পুলিশ ও স্থানীয় সংস্থা সমূহের জবাবদিহিতা পেশাদারিত্ব এবং সততা সম্পর্কে জণগনের আস্থা বৃদ্ধি করা।

৪)     অপরাধ প্রতিরোধ ও জন নিরাপত্তার মান উন্নয়নে কমিউনিটির সাথে কার্যকরী অংশী দারিত্ব গড়ে তোলা।

৫)     জন নিরাপত্তা বিষয়ে জনসাধারনের চিন্তা ধারা উন্নত করা।

Important links